Skip to content

“ভোটের পর বিজেপি নেতাদের জয় সিয়ারাম বলিয়ে ছাড়বো” ওপেন চ্যালেঞ্জ অভিষেকের!

Share on facebook
Share on whatsapp
Share on twitter
Share on skype
Share on email
Share on pinterest

সাকিব হাসান,দক্ষিণ ২৪ পরগনার:

 

বিধানসভা ভোটের আগে স্লোগান যুদ্ধ তুঙ্গে। অমিত শাহ কোচবিহারের সভা থেকে বলেছিলেন, “ভোটের পর জয় শ্রীরাম ধ্বনি দিতে হবে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কেও।” তার জবাবে শনিবার দক্ষিণ ২৪ পরগনার কুলপি থেকে যুব তৃণমূল সভাপতি অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায় পালটা হুঙ্কার, “বিজেপি নেতাদের জয় সিয়ারাম বলিয়ে ছাড়ব।” এবার সরাসরি চ্যালেঞ্জ ছুঁড়ে দিলেন অভিষেক। ফলে স্লোগান নিয়ে এই দ্বন্দ্ব বিধানসভা ভোটের একটা অঙ্গ হয়ে দাঁড়াবে বলেই মত একাংশের।

ভোটের আগে এখন লাগাতার প্রচারে নেমেছে বিভিন্ন রাজনৈতিক দল। কেউ কোথাও প্রচারসভা করলে ২৪ ঘণ্টার মধ্যে পালটা মাঠে নেমে পড়ছে প্রতিপক্ষ। সেভাবেই শনিবার দক্ষিণ ২৪ পরগনার কুলপি বিধানসভা কেন্দ্রে জনসভা এবং রোড শো’র জোড়া কর্মসূচি সারলেন তৃণমূল সাংসদ অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়। কুলপির জনসভা থেকেই তিনি নতুন করে স্লোগান অস্ত্রে শান দিয়ে বললেন, “বিজেপি নেতারা বলেন, জয় শ্রীরাম। আমরা বলি, জয় সিয়ারাম। অর্থাৎ সীতা আর রাম। আগেই আসে নারীর নাম। বিজেপি নেতারা এই উচ্চারণ করেন না। কারণ, তারা নারীদের সম্মান দিতে জানেন না। কিন্তু চ্যালেঞ্জ করছি, ভোটের পর ওঁদের ‘জয় সিয়ারাম’ বলিয়ে ছাড়ব।”

অন্যদিকে, পুরাণ চরিত্র সীতা এবং রামকে একসঙ্গে ‘সিয়ারাম’ বলা হয়ে থাকে। নারীর নাম সামনে রেখে নারীশক্তিকে অগ্রাধিকার দেওয়া হয়েছে। বিভিন্ন উৎসব, অনুষ্ঠানে সেখানকার মানুষজনের মুখে শোনা যায় ‘জয় সিয়ারাম’ ধ্বনি। যার সঙ্গে রাজনীতির কোনও যোগ ছিল না। এই মুহূর্তে দেশের একমাত্র মহিলা মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। সেদিক থেকে নারীশক্তিকে সম্মান জানাতে ‘জয় সিয়ারাম’ স্লোগান তৃণমূলের। অভিষেকের অভিযোগ, বিজেপি নেতাদের সেটুকু বোধ নেই, তাই তারা ‘সিয়ারাম’ খারিজ করে ‘শ্রীরামে’ ঝুঁকেছেন। কিন্তু বাংলার মাটিতে নারীরা সর্বদাই শ্রদ্ধার। বাংলা মানেই মা। ভোটের পরে ‘জয় সিয়ারাম’ বলে নারীশক্তিকে সম্মান জানাতেই বাধ্য হবে বিজেপি